রাইড শেয়ারিংয়ের ২৫৫ গাড়ি চলাচলে অনুমতি বিআরটিএ’র

রাইড শেয়ারিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের অ্যাপ ব্যবহারে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে যাত্রী পরিবহন করতে পারবে এরকম এনলিস্টমেন্ট সাটিফিকেটপ্রাপ্ত ২৫৫টি মোটরযান চলাচলে অনুমতি দিয়েছে সরকার।

মোটরসাইকেল বাদে এনলিস্টমেন্ট মোটরকার, জিপ, মাইক্রোবাস ও অ্যাম্বুলেন্স রোববার থেকে চলাচলের অনুমতি দিয়ে রাইড শেয়ারিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে রোববার চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)।

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে দুই মাসের বেশি সময় দেশে সাধারণ ছুটির পর সরকার ৩১ মে থেকে বেশিরভাগ বিধিনিষেধ তুলে নিলেও রাইড শেয়ারিং সেবা বন্ধ ছিল।

চিঠিতে বলা হয়, “কোভিড-১৯ জনিত উদ্ভূত পরিস্থিতিকালীন রাইড শেয়ারিং সার্ভিস পরিচালনায় বিআরটিএ থেকে রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের অ্যাপস ব্যবহার করে শুধুমাত্র রাইড শেয়ারিং মোটরযান এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেটপ্রাপ্ত মোটরকার, জিপ, মাইক্রোবাস ও অ্যাম্বুলেন্স (মোটরসাইকেল ব্যতীত) স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ২১ জুন থেকে ঢাকা মেট্রো, গাজীপুর মেট্রো, ঢাকা জেলা, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, নরসিংদী ও গাজীপুর জেলা এলাকায় চলাচলের জন্য অনুমতি প্রদান করা হল।”

‘রাইডশেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালা-২০১৭’ অনুযায়ী রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের অ্যাপের মাধ্যমে রাইড শেয়ারিং মোটরযান এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেট ব্যতীত রাইডশেয়ারিং সার্ভিস পরিচালনার কোনো সুযোগ নেই।

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে রাইড শেয়ারিং অ্যাপের মাধ্যমে সামাজিক দুরত্ব মেনে মোটর সাইকেলে যাত্রী পরিবহন করা সম্ভব নয় বলে অ্যাপ ব্যবহারের মাধ্যমে মোটর সাইকেল চলাচলের অনুমতি দেওয়া সম্ভব নয় বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।

করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) জনিত উদ্ভূত পরিস্থিতিতে যে সমস্ত মোটরকার, জিপ, মাইক্রোবাস ও অ্যাম্বুলেন্স রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের অ্যাপস ব্যবহারের মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে যাত্রী পরিবহন করতে পারবে এ ধরণের এনলিস্টমেন্ট সাটিফিকেটপ্রাপ্ত ২৫৫টি মোটরযানের তালিকা চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। ১১টি রাইড শেয়ারিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানকে এ চিঠি পাঠায় বিআরটিএ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.