ঢাকা থেকে পুনরায় ফ্লাইট চালানোর অনুমতি চেয়েছে টার্কিশ ও এমিরেটস এয়ারলাইন্স

করোনাভাইরাস মহামারীর সময়ে একমাত্র চায়না ছাড়া বাকি বিশ্বের সাথে আকাশ পথের যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ। বর্তমানে বহির্বিশ্বে করোনা পরিস্থিতি মোটামুটি স্বাভাবিক হয়ে আসায় যোগাযোগের জন্য ধীরে ধীরে খুলে যাচ্ছে আকাশপথ। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশও আন্তর্জাতিক রুটের ফ্লাইট শুরু করছে আগামী ১৬ জুন। প্রাথমিকভাবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও কাতার এয়ারওয়েজের ফ্লাইট দিয়েই শুরু হচ্ছে করোনা পরবর্তী আন্তর্জাতিক যাত্রা।

টার্কিশ এয়ারলাইন্স

এরইমধ্যে আরও দুটি আন্তর্জাতিক বিমান সংস্থা দুবাইয়ের জাতীয় পতাকাবাহী এমিরেটস এয়ারলাইন্স ও তুর্কির জাতীয় পতাকাবাহী টার্কিশ এয়ারলাইন্স বাংলাদেশ থেকে পুনরায় ফ্লাইট চালানোর অনুমতি চেয়েছে।

এমিরেটস এয়ারলাইন্স

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) এর চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান জানিয়েছেন, এমিরেটস ও টার্কিশ এয়ারলাইন্স পুনরায় ফ্লাইট চালানোর অনুমতির জন্য দরখাস্ত করেছে।

বন্ধ হয়ে যাওয়া আরও বেশকিছু আন্তর্জাতিক বিমান সংস্থা পুনরায় ফ্লাইট চালু করার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। হয়তো তারা দ্রুতই আনুষ্ঠানিকভাবে দরখাস্তও করবে বলে জানান এম মফিদুর রহমান।

তিনি আরও জানান, আমরা করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। পৃথিবীর অন্যান্য দেশগুলো যদি তাদের এয়ারপোর্ট উন্মুক্ত করে দেয় তাহলে হয়তো আমরাও সেই পথে হাঁটবো।

এদিকে দেশের মধ্যে রাজশাহী, কক্সবাজার ও বরিশাল রুটেও ডোমেস্টিক ফ্লাইট পুনরায় চালু করার কথা ভাবছে বেবিচক। যদিও এইমুহূর্তে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার উচ্চ হওয়ায় বরিশাল এয়ারপোর্ট ফ্লাইট পরিচালনার জন্য এখনো উপযুক্ত নয়। কিন্তু বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, তারা সংক্রমণ রোধে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ নিয়েই ফ্লাইট পরিচালনা করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.